আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চান নায়ক ফারুক !!

0
71

দৈনিক আলাপ ওয়েবডেস্ক:‌ ‘আওয়ামী লীগের রাজনীতি ছাড়া অন্য কোনো রাজনীতি আমি বুঝিনা। এবার আমি চিন্তা করেছি সত্যর জন্য, সুন্দরের জন্য ইমোশনাল পৃথিবী ছেড়ে আমাকে রাজনীতিতে আসতে হবে। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোরালোভাবে বলতে চাই আমাকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে দেন। আমি হয়তো আপনার জন্য কিছু করতে পারব না। তবে পার্টির জন্য তো কিছু করতে পারব। বঙ্গবন্ধুর কথা তো মানুষের কাছে বলতে পারব। তখন বঙ্গবন্ধুর কথাগুলো আরও সুন্দরভাবে রেকর্ড হবে।’
মিয়া ভাই-খ্যাত এই নায়ক বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতির মধ্যে ভালোবাসা আছে, ত্যাগ আছে, সত্য আছে। হয়তো বলতে পারেন অমুক এই করছে তমুক ওই করছে। এই পথ এমন ছিল না। এখন এই পথে অনেক কাঁটা হয়ে গেছে। নোংরা হয়ে গেছে। মানুষকে সঠিক পথে আনতে হলে সুন্দর সংস্কৃতি দিয়ে ভালো পথে আনতে হবে।’
কোন আসন থেকে নির্বাচন করতে চান? জানতে চাইলে ফারুক বলেন, সারা বাংলাদেশটাই তো আমাদের। আমরা বাংলাদেশের মানুষ। আমাকে সারাদেশের মানুষ চেনেন। আর যদি না চিনতেন তাহলে এত বড় সাহস করতাম না। নির্বাচনের আসন এখানেও হতে পারে (এখন উত্তরায় বসবাস করছেন)। কিংবা আমার গ্রাম গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ থেকেও হতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কালীগঞ্জ থেকে আমি নির্বাচন করলে সেখানকার মানুষ অনেক খুশি হতেন। তারা যা চায় তা এখনও পায়নি। আজ পর্যন্ত পায়নি। ‘বঙ্গবন্ধু বাজার’ নাম আমার বাবা দিয়ে গেছেন। সেই বঙ্গবন্ধু বাজারের ইতিহাস আজ পাথর চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। কারণ যদি আপা জেনে যান? আপা যদি ইতিহাস জেনে যান তাহলে তো তিনি খুশি হবেন। আমার কর্ম তো আমাকে ক্ষেত্র তৈরি করে দেবে।’
লাঠিয়াল খ্যাত এই অভিনেতা বলেন, ‘এ দেশের মানুষের পরাধীনতার শিকল ছিঁড়েছেন আমাদের নেত্রী। তার প্রচেষ্টায় দেশে উন্নয়নের ধারা তৈরি হয়েছে। আমি সেই উন্নয়নের ধারায় কাজ করে যেতে চাই। এই উন্নয়নের আরেক নাম সোনার বাংলা। জানিনা কতদিন বাঁচবো। তবে যতদিন বাঁচবো মানুষের জন্য কাজ করে যাবার ইচ্ছে আছে।’
নায়ক ফারুক স্কুল জীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। ১৯৬৬ সালে তিনি ছয় দফা আন্দোলনে যোগ দেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্নেহভাজন ছিলেন। বঙ্গবন্ধু তাকে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য অনুপ্রাণিত করেছিলেন।

LEAVE A REPLY