আপনার জন্য দোয়া করি, আপনি ভালো থাকবেন’

0
28

ঢাকা প্রতিনিধি : ‘আপনাকে আমি খুব ভালোবাসি। আমার স্বামী মারা গেছে, আমি কষ্টে ছিলাম। যেদিন থেকে বিধবা ভাতা পাচ্ছি সেদিন থেকে খুব ভালো আছি। আপনার জন্য দোয়া করি, আপনি ভালো থাকবেন।’

এভাবেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নিজের অনুভূতির কথা তুলে ধরলেন চাপাইনবাবগঞ্জের বিধবা ভাতাপ্রাপ্ত নূর জাহান বেগম। মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে ইলেকট্রনিক উপায়ে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বিভিন্ন ভাতা বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে উপকারভোগীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে কথা বলেন।

তখন নূর জাহান ছাড়াও কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী ও গোপালগঞ্জের প্রান্তিক এলাকার সামাজিক নিরাপত্তা সুবিধাভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে কিশোরগঞ্জের বিধবা ভাতাপ্রাপ্ত রুমা আক্তার বলেন, ‘আপনি আমাকে যে সহযোগিতা করেছেন সেটা পেয়ে আমার খুব উপকার হয়েছে। এই টাকা আমি সংসারের কাজে লাগাই এবং ওষুধ খাই। আগে শহরে যাইতে হইতো, এখন যে আপনি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে টাকা দিচ্ছেন এতে আমাদের উপকার হবে। আপনাকে আমি আমার অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে দোয়া করি।’

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের জন্যই কাজ করি, মানুষের জন্যই রাজনীতি করি। আর সে কথা চিন্তা করেই আমরা বয়স্ক ভাতা থেকে শুরু করে হিজড়া, বেদে, চা শ্রমিক ইত্যাদিদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আমরা কাজ করেছি। সমস্যার সমাধান করেছি। ’

উপকারভোগীদের মধ্যে যারা সক্ষম তারা যেন সরকারি সহায়তার পাশাপাশি কাজকর্মে নিয়োজিত থাকেন সে বিষয়ে জোর দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘শুধু ভাতার ওপর নির্ভরশীল হলে চলবে না। যারা কর্মক্ষম তারা কাজ করবেন। শুধু ভাতার ওপর নির্ভরশীল হয়ে বসে থাকলে কর্মবিমুখ হয়ে পড়বেন। ’

তিনি আরও বলেন, ‘কারও সংসার চালানোর দায়িত্ব আমরা নেব না। তবে যে ভাতা দেব, সে ভাতায় আপনাদের খাবারের ব্যবস্থা হবে। বয়স্ক মানুষ যখন ভাতা পায় তখন ছেলে-মেয়েরাও তাকে গুরুত্ব দেয়। তার পারিবারিক ও সামাজিক সমস্যা দূর হয়। তাকে সংসারে বোঝা না ভেবে গুরুত্ব দেয়া হয়। ’

বর্তমানে বয়স্ক-বিধবা-স্বামী নিগৃহিতা এবং প্রতিবন্ধীসহ ৬৬ লাখ ১৬ হাজার প্রান্তিক মানুষ সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় সেবা পাচ্ছেন।

এখন থেকে এসব সুবিধাভোগীর মধ্যে এক লাখ ১৫ হাজার উপকারভোগী তাদের গত এপ্রিল-জুন সময়কালের ভাতাসমূহ ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে সরাসরি তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাবেন। মধুমতি, এনআরবি ও ব্যাংক এশিয়ার মাধ্যমে এই টাকা তোলা যাবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, চলতি অর্থ বছরে আরও ১০টি জেলার উপকারভোগীদের মধ্যে ইলেক্ট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার পদ্ধতিতে ভাতা বিতরণ কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা হবে।

LEAVE A REPLY