ঈশ্বরদীতে ইক্ষু গবেষণা উচচ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

0
97

সেলিম আহমেদ ঈশ্বরদী প্রতিনিধি ॥ ঈশ্বরদী উপজেলার স্বনামধন্য ঐতিহ্যবাহি বিদ্যাপিঠ ইক্ষু গবেষণা উচচ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সোমবার সকাল থেকে দিন ব্যাপি স্কুল প্রাঙ্গনে বিভিন্ন ধরনের খেলাধূলা ও বিকেলে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। উক্ত বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরষ্কার বিতরণ করেন বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিএসআরআই)’র মহাপরিচালক ও বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ড. মোঃ আমজাদ হোসেন।
ইক্ষু গবেষণা উচচ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ হাসানুজ্জামানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. এ এস এম আমান উল্লাহ টিওটি বিএসআরআই, ড. সমজিৎ কুমার পাল প্রকল্প পরিচালক বিএসআরআই, ড.কূয়াসা মাহমুদ প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, ড. নাদিরা ইসলাম উর্দ্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিএসআরআই, মোঃ আবু তাহের সোহেল উর্দ্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিএসআরআই, ড, নূর আলম মিয়া বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, ড. মোঃ আতাউর রহমান প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিএসআরআই (চলতি দায়িত্ব), মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল বাকী উপ-পরিচালক (নিরীক্ষা ও হিসাব) ও দিলারা পারভীন সদস্য বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি।
বক্তারা বলেন, আজকের শিশুরাই আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। জয়-পরাজয় বড় কথা নয় অংশগ্রহণ করাই সবচেয়ে বড় কথা। এই শিশুরাই একদিন দেশ পরিচালনা করবে। সন্ত্রাস, মাদক ও বাল্য বিবাহ রোধে ক্রীড়ার বিকল্প নেই। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও ক্রীড়া একটি শিশুকে পুরোপুরি মানুষ হিসেবে গড়ে তোলে। ১৯৮১ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি শাপলা কুড়ি কিন্ডার গার্টেন নামে গুটি কয়েক শিক্ষার্থী নিয়ে প্রথম এই স্কুলের প্রতিষ্ঠা হয়। এরপর থেকে ক্রমান্বয়ে স্কুলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বর্তমানে এই স্কুল উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ স্কুল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। স্কুল পরিচালনা কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকদের সার্বিক সহযোগিতায় প্রতি বছর এই স্কুল থেকে জেএসসি ও এসএসসিতে শতভাগ পাশ এবং অসংখ্য ছেলে-মেয়ে জিপিএ-৫ ও গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে আসছে।

LEAVE A REPLY