কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্রতি বিএনপির পূর্ণ সমর্থনের কথা জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

0
18
ঠাকুরগাঁও শহরে বিএনপির এক অনুষ্ঠানে আজ সোমবার বক্তব্য দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : আজ সোমবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে সদর ও রুহিয়া উপজেলা বিএনপির যৌথ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমাদের এই কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্রতি পূর্ণ সমর্থন আছে। অবিলম্বে যারা গ্রেপ্তার হয়েছে, তাদেরকে মুক্ত করার দাবি জানাচ্ছি। শিক্ষক- ছাত্রদের ওপর যারা আক্রমণ করেছে, তাদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।’

ক্ষমতাসীন সরকার জনগণের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আজকে তারাই সবচেয়ে বড় নির্যাতনকারী হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা দমন করছে ভিন্নমতকে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গণতন্ত্রের যে মূলকথা ভিন্নমতকে সহ্য করা, টলারেন্স; সেটা তাদের নেই। তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন। রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে।’

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘যিনি প্রতিদিন অসংখ্য মিথ্যা কথা বলেন, মিথ্যা কথার ফুলঝুড়ি দিয়ে গায়ের জোরে তিনি ক্ষমতায় থাকতে চান। মাঝেমধ্যে সত্য কথাগুলো বেরিয়ে আসে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমার আহ্বান আজকে সরকারি দলের কাছে, যে আপনারা আওয়ামী লীগ; আওয়ামী লীগ হয়েই ফিরে আসুন। আপনারা তো আওয়ামী লীগ নাই এখন। আপনাদের দল যে কে চালায় তাও আমরা জানি না। আপনাদের সরকার কে চালায় তাও আমরা জানি না। এটা আওয়ামী লীগ মনে হয় না আমাদের কাছে। আমাদের কাছে মনে হয় যে, এটা সম্পূর্ণভাবে রাজনীতির বাইরের কোনো শক্তি। বাংলাদেশের বাইরের কোনো শক্তি আজকে বাংলাদেশকে পরিচালনা করছে। তাই বলছি ফিরে আসুন সেখান থেকে।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরো বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে জনগণকে একত্রিত করে আমাদের এর জবাব দিতে হবে। আমরা বারবার করে বলছি যে আমরা নির্বাচনে যেতে চাই। কারণ আমরা জানি, নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতা পরিবর্তনের অন্য কোনো রাস্তা নেই। কিন্তু সেই নির্বাচন তো অবশ্যই সব মানুষকে ভোট দিতে যেতে হবে। তাদেরকে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার ক্ষমতা দিতে হবে।’

জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমানের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেন কমিটির সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন, সহসভাপতি শাহেদ কামাল চৌধুরী ডালিম, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল হামিদ, রুহিয়া উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক আনছারুল হক প্রমুখ।

LEAVE A REPLY