তারুণ্যের কবি ও লেখক দোলা সিদ্দিক এর ভিন্ন মাত্রার জীবনের স্মৃতি নিয়ে জীবনধর্মী কবিতা ” তিরিশ বছর পূর্বে”

0
237
তারুণ্যের কবি ও লেখক দোলা সিদ্দিক

তিরিশ বছর পূর্বে

                                      দোলা সিদ্দিক

তিরিশ বছর পর স্বপ্নিল রাত,
কথা দিলে তুমি দেখা হবে আবার!
বৃষ্টিহীন সকালের রোদে,সেই পুরনো জায়গায়
কার্জনহলের মাঠের পাশে,।
না হয়, রমনার বটমূলে সে কবে শরতের রোদে,
হয়েছিল দেখা।

পড়বে কি তুমি মেহেরুন রঙের শার্ট?
আমার খোঁপাই দেওয়ার জন্য–
থাকবে কি তোমার হাতে বেলীফুলের মালা?
হেঁটে হেঁটে যাবে কি দোয়োলচত্বরের পাশে?
যেমন গিয়েছিলে তিরিশ বছর আগে।

রাতজেগে পত্র লিখে যেমন তোমার চোখ লাল হয়ে থাকতো
এখনও কি তুমি সেরকমি আছ? না–কি বদলে গেছ?
কম্পিত হাতে একটা লাঠি থাকতো না হয় লাটিম।
তোমার ঘামের বিন্দুগুলো এখনও নাকের ডকায় উঠবে কি জেগে?
যেমন হয়েছিল সেদিন তিরিশ বছর আগে।
আমি বকুল পছন্দ করি তাই তুমি গুণে গুণে বকুল নিয়ে আসতে।
আমার বয়সের সাথে মিলিয়ে।

তিরিশ বছর আগে শেষ দেখা হয়েছিল যে দিন তোমার সাথে
২২টি বকুল ছিল তোমার হাতে,
আজ গুণে গুণে ৫২টি বকুল নিব দু’ হাত ভরে।
সুগন্ধি বকুল কি সুরোভিত হয়ে যাবে, শরিরের ঘামে
যেমন হয়েছিল সেদিন তিরিশ বছর আগে।

তেমন কি হবে যা হয়েছিল সেদিনের সকালের রোদে
বকুলের গন্ধ নিয়ে নিঃশ্বাস বন্ধ করে যেমন ছিলে
অট্টহাসিতে মুখরিত হয়েছিল সমস্ত রমনার লেক।
হাসতে পারো তুমি আজকাল।
তোমার নাকের উপর বিন্দু বিন্দু ঘামগুলোতে –
আমি যদি আঁঙুলের ছোঁয়া দেই
তুমি কি উঠবে কেঁপে যেমন চমকে উঠেছিলে তিরিশ বছর আগে।

সেদিন আমরা কোন বাঁধা না মেনে দুজনায় পাশাপাশি
হাতে হাত রেখে হেঁটেছিলাম, রমনা বটমূল থেকে টি এস সি মোড়
আজ পারবো কি সে মহাকালে ফিরে যেতে।
যা ছিল তোমার আমার তিরিশ বছর আগে।

LEAVE A REPLY