তারুণ্যের কবি, মোঃ তোহিদুর রহমান এর সম্পূর্ণ ভিন্ন আঙ্গিকের কবিতা “কলম কবির মূলধন”

0
151

“কলম কবির মূলধন”

মোঃ তোহিদুর রহমান

আমার কবিতা কায়াহীন
কল্পনার কেবল বহিঃপ্রকাশ
নয় কোন ব্যক্তি আক্রমণ
সত্যকে প্রতিবিম্বিত করে
মিথ্যার খোলস প্রকাশ।
কবির দৃষ্টি ভিন্নরূপ
সাধারণ মানুষ হতে
জড়ের মধ্যে জীবন পায়
বসন্ত মাখা হৃদয় টিতে।
কবিরা স্বজন বোঝেনা
তারা বোঝে সমাজ।
ঘৃণ্য অপরাধ গুলোর জন্য
কবির বুকে পড়ে বাজ
তাই কবির কবিতায়
প্রতিনিয়ত ভিন্ন ভিন্ন সাজ।
কাব্যিক প্রতিভা ঈশ্বরের উপহার
তাই তারা সত্যের পক্ষে
সরব হয়ে উঠে বারং বার।
কবিরা কারো নয় তাবেদার
তাই তারা তুলে ধরে
বিন্দু হতে সিন্ধুর ওজন ভার।
কবির কলম নিরব যোদ্ধা
যুদ্ধ করবে শত শতাব্দী ধরে
মেটাবে সমাজের জীবন ক্ষুধা।
কবিরা তখনি হয় জেল বন্দি
যখন কলমের ডগায় তুলে ধরে
ওই মানুষ গুলোর মনের অভিসন্ধি।
সমাজ চিত্র আমি আঁকিনা
কাব্যবন্দি করে কলম
তাই কলম কবির মূলধন।।

লেখক পরিচিতি: কবি মোঃ তোহিদুর রহমান ০১/০৩/১৯৯৬ সালে ভারতবর্ষের অন্তরগত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মালদহ জেলার বৈষ্ণবনগর থানার কৃষ্ণপুর অঞ্চলের সোবরাতি টোলা গ্রামে এক মধ্যবিত্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন।পিতা মোঃ ইমাজুদ্দিন আহমেদ এবং মাতা বেরাফুল খাতুন।চার ভাইবোনের মধ্যে কবি দ্বিতীয়।কবি শৈশব কালে চঞ্চল প্রকৃতির হওয়ার জন্য বিভিন্ন নার্সারি বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন। ২০১৩ সালে মাধ্যমিক এবং ২০১৫ সালে উচ্চমাধ্যমিক ভগবানপুর কে.বি.এস উচ্চবিদ্যালয় থেকে কলা বিভাগে প্রথম শ্রেণীতে উর্ত্তীর্ণ ।তারপর স্নাতক ডিগ্রী লাভ করার জন্য ভর্তি হন কোলকাতা সেন্টজেভিয়ার্স কলেজে বাংলা বিভাগে,আর্থিক অনাটনের জন্য কবি চলে আসেন বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে সেখানেও তিনি বাংলা বিভাগে ভর্তি হন কিন্তু সেখানেও ভাগ্য সাই দেইনি সেখান থেকে চলে আসেন পার্শ্বীয় কালিয়াচক সুলতানগঞ্জ কলেজে। বর্তমানে তিনি সেই কলেজেই বাংলা বিভাগ স্নাতক তৃতীয় বর্ষে পাঠরত। কবির কাব্যিক জগৎতে হাতে খড়ি অষ্টম শ্রেণী থেকে
আজও তার গতি অব্যাহত রয়েছে। কবির প্রত্যেক কবিতায় প্রতিবাদী সুর শোনা যায়। কবিতা লিখার উৎসাহ কবি পাণ অধ্যাপক প্রবীর কুমার পাল, শিক্ষক জিয়াউর রহমান,শিক্ষক অধীর চন্দ্র বর্মণ, কবির জামাইবাবু সোভারুল ইসলামের কাছ থেকে।

LEAVE A REPLY