বাংলাদেশি বিমান বিধ্বস্ত, বিমান বিধ্বস্তে শিশুসহ মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯

0
333

দৈনিক আলাপ ডেস্ক: ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স BS-211 ফ্লাইটটি দুর্ঘটনায় ২ শিশুসহ ৪৯ জন নিহতের খবর জানিয়েছে নেপাল পুলিশ। এছাড়া ১৭ জন মারাত্মক আহত হয়ে চিকিৎসাধীন আছে।
নেপাল পুলিশের ‍মুখপাত্র ডিআইজি মনোজ নিউপেন এ তথ্য গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
একটি সূত্রে জানা গেছে, বিমানটিতে চারজন ক্রুসহ ৩২ জন বাংলাদেশি যাত্রী ছিলো। তাদের মধ্যে দুইজনের পরিচয় জানা গেছে।
তারা হলেন- পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য উম্মে সালমা ও নাজিয়া আফরিন চৌধুরী।
বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন হাফিজের কাছে গ্রাউন্ড থেকে সঠিক তথ্য পৌঁছাতে দেরি হওয়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে একটি সূত্রে জানা গেছে।
নেপাল পুলিশের এসএসপি ফুলচাঁদ জোশি বলেন, আহত ৮জনকে উদ্ধার করে কাঠমাণ্ডু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তাদের মৃত্যু হয়।


ইউএস-বাংলার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ জানান, নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরের কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে দেয়া ভুল বার্তার কারণে সোমবার বিমান দুর্ঘটনা ঘটেছে।
ঢাকাস্থ ইউএস বাংলার কার্যালয়ের সামনে সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এ তথ্য জানান।

ইমরান আসিফ বলেন, বিমানের ক্যাপ্টেনের সঙ্গে বিমানবন্দরের কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে ভুল বার্তা দেয়া হয়েছিল। ইতিমধ্যে এর অডিও বার্তা ইউটিউবে প্রকাশ করা হয়েছে।
এদিকে ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে সিভিল এভিয়েশন। আগামীকাল মঙ্গলবার তারা কাঠমাণ্ডু যাবেন বলে জানা গেছে।
নেপালের ভ্রমণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব সুরেশ আচার্য জানান, সোমবার বিকেলে বিধ্বস্ত হওয়া এই বিমানে ৪ ক্রুসহ ৭১ জন ছিলেন। তাদের মধ্যে ৩৭ জন পুরুষ, ২৭ জন নারী ও দুটি শিশু।
নেপালের কাঠমাণ্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আজ দুপুর সোয়া দুইটার দিকে এই ঘটনায় সব ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা করেছে টিআইএ।

LEAVE A REPLY