শেষ বলের ছয়ে ভাঙল শিরোপার স্বপ্ন

0
75

খেলাধুলা ডেস্ক: এর আগে তিন তিনবার কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠে হতাশ হতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। পূরণ হয়নি শিরোপা জয়ের স্বপ্ন। এবার শ্রীলঙ্কার মাটিতে অনুষ্ঠিত নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশ চলে গিয়েছিল সেই স্বপ্ন পূরণের দ্বারপ্রান্তে। কিন্তু আরও একবার তীরে এসে তরী ডুবেছে টাইগারদের। শেষ বলে ছয় মেরে ভারতকে নাটকীয়ভাবে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন দিনেশ কার্তিক। ৪ উইকেটের রোমাঞ্চকর এক জয় দিয়ে নিদাহাস ট্রফির শিরোপাতেও পড়ল ভারতের হাত।

জয়ের জন্য শেষ ওভারে ভারতের প্রয়োজন ছিল ১২ রান। সেই সমীকরণ এসে দাঁড়ায় এক বলে ৫ রান। চার মারলেও ম্যাচটি গড়াত সুপার ওভারে। কিন্তু সৌম্যর শেষ বলটা ছয় মেরে বাংলাদেশের কাছ থেকে জয় ছিনিয়ে নিয়েছেন কার্তিক। ৮ বলে ২৯ রান করে কার্তিকই বড় ভূমিকা রেখেছেন বাংলাদেশের স্বপ্নভঙ্গে।

শুরুতে ব্যাটিং করে বাংলাদেশ স্কোরবোর্ডে জমা করেছে ১৬৬ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই জোড়া ধাক্কা খেয়েছে ভারত। স্কোরবোর্ডে ৩২ রান জমা করতেই সাজঘরে ফিরেছেন শিখর ধাওয়ান ও সুরেশ রায়না। তবে ৪২ বলে ৫৬ রানের রানের ইনিংস খেলে বাংলাদেশের বোলারদের ভালোই ভুগিয়েছেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। দশম ওভারে ২২ রান করা লোকেশ রাহুলকে আউট করে অবশ্য বাংলাদেশ শিবিরে আশা জাগিয়েছেন রুবেল হোসেন। ১৪তম ওভারে রোহিতকে আউট করে সেই আশা আরও জোরদার করেছিলেন নাজমুল ইসলাম অপু।

২৮ ও ১৭ রান করে মনিশ পান্ডে ও বিজয় শঙ্কর আউট হয়ে গেলে বাংলাদেশর জয় প্রায় নিশ্চিতই ধরে নিয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু শেষ দুই ওভারেই ম্যাচের পুরো চিত্র পাল্টে দিয়েছেন কার্তিক।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে বাংলাদেশও অবশ্য পড়েছিল ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে। ৩৩ রান সংগ্রহ করতেই হারিয়েছিল তিন উইকেট। তবে এরপর সাব্বির রহমানের দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিংয়ে স্কোরবোর্ডে ১৬৬ রানের সম্মানজনক সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে বাংলাদেশ। ১৯তম ওভারে ৫০ বলে ৭৭ রানের ইনিংস খেলে সাজঘরে ফিরেছিলেন সাব্বির। ২১ রান করে দুর্ভাগ্যবশত রানআউটের ফাঁদে পড়েছেন মাহমুদউল্লাহ। আর শেষপর্যায়ে মেহেদী হাসান মিরাজ খেলেছেন সাত বলে ১৯ রানের ছোট্ট কিন্তু মহাগুরুত্বপূর্ণ ইনিংস।

ভারতের পক্ষে দারুণ বোলিং করেছেন যুবেন্দ্র চাহাল। ৪ ওভার বল করে মাত্র ১৮ রানের বিনিময়ে ৩টি উইকেট নিয়েছেন এই লেগস্পিনার। ৪ ওভার বল করে মাত্র ২০ রান দিয়ে একটি উইকেট শিকার করেছেন ওয়াশিংটন সুন্দর। দুটি উইকেট গেছে জয়দেব উনাদকাটের ঝুলিতে।

LEAVE A REPLY