শ্রীদেবীর শেষ বিদায় চোখের জলে বিসর্জন-পর্ব সম্পন্ন

0
152
শ্রীদেবীর শেষ বিদায়

দৈনিক আলাপ বিনোদন ডেস্ক:     কেউ এসেছেন কলকাতা থেকে। কেউ বা আবার সুদূর মলদ্বীপ থেকে। সকলের একটাই ইচ্ছে, শ্রীদেবীকে শেষ বারের মতো দেখা। বুধবার সকাল ৬টা থেকেই মুম্বইয়ের লোখণ্ডওয়ালার রাস্তায় ভিড় জমতে শুরু করে। বেলা যত গড়িয়েছে ভিড় চলতে শুরু করেছে লোখণ্ডওয়ালার সেলিব্রেশন স্পোর্টস ক্লাবের দিকে। শ্রীদেবীর মরদেহ সেখানেই শায়িত ছিল আজ।

শ্রীদেবীর ফ্যানেদের জন্য সকাল সাড়ে ৯টায় খুলে দেওয়া হয় ক্লাবের দরজা। তবে তার আগে থেকেই ক্লাবের গেটের সামনেটা ভিড়ে ভিড়াক্কার। প্রয়াত নায়িকাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে একে একে এসেছেন অসংখ্য বলিউডি তারকা। আর তাঁদের ছাপিয়ে গিয়েছে শ্রী-র ফ্যানেরা। অনেকেই স্মৃতিচারণ করেছেন। অনেকে আবার শ্রী-র ফিল্মের গান গেয়ে শুনিয়েছেন।

‘লমহে’ ছবির শুটিং-এর সময়ই শ্রীদেবী ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তাঁর মৃত্যুর পর যেন সব কিছুই যেন সাদা কাপড়ে মুড়ে ফেলা হয়। নায়িকার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাই আজ সব কিছুই সাজানো হয়েছিল তাঁর প্রিয় রং সাদায়। সাদা ফুল দিয়ে সাজানোর পাশাপাশি শ্রীদেবী-র বাংলো ‘ভাগ্য’ও মুড়ে ফেলা হয়েছিল সাদা কাপড়ে। অন্ত্যেষ্টিতেও সকলকে অনুরোধ করা হয়েছিল সাদা পোশাকে আসতে। সেই মতো প্রায় সব বলিউড তারকাকেই এ দিন দেখা গিয়েছে সাদা পোশাকে লোখণ্ডওয়ালার সেলিব্রেশন স্পোর্টস ক্লাবে।

এ দিন সকালে সবচেয়ে আগে স্পোর্টস ক্লাবে পৌঁছে যান প্রযোজক-পরিচালক কর্ণ জোহর। এসে পৌঁছন শ্রীদেবীর দেওর সঞ্জয় কপূরও। ক্রমশই ভিড় জমতে থাকে স্পোর্টস ক্লাবের বাইরে। স্বপ্নের নায়িকাকে বিদায় জানাতে আজ অফিস ছুটি নিয়ে চলে এসেছিলেন অগণিত ভক্ত। রাত ১২টা থেকেও অধীর অপেক্ষায় কেউ কেউ লাইন দিয়েছিলেন স্পোর্টস ক্লাবের সামনে।

এখানেই দুপুর পৌনে ৩টে পর্যন্ত শায়িত ছিল শ্রীদেবী-র মরদেহ। এর পর মরদেহ নিয়ে রওনা দেওয়া হয় ভিলে পার্লের সেবাসমাজ শ্মশানের উদ্দেশে। সেখানে সাড়ে ৩টের সময় শেষকৃত্য শুর হওয়ার কথা ছিল। তবে এ দিন তা শুরু হয় সওয়া ৫টা নাগাদ।

LEAVE A REPLY