সরকারি এডওয়ার্ড কলেজে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন পালন

0
78
ক্যাপসন : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন উপলক্ষে সরকারি এডওয়ার্ড কলেজে আলোচনাসভা ও কেক কাটার আয়োজন করা হয়। ছবি- আর কে আকাশ/বাংলার মুখ

আর কে আকাশ, পাবনা প্রতিনিধি : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের উদ্যোগে ক্যাম্পাসের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনাসভা, কেক কাটা ও বই পড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
বেলা ১০টায় অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মো. হুমায়ুন কবির মজুমদারের নেতৃত্বে কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। বেলা সাড়ে ১০টায় কলেজের শহীদ আব্দুস ছাত্তার মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনাসভায় সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মো. হুমায়ুন কবির মজুমদার বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক অনন্য ইতিহাসের নাম। বঙ্গবন্ধু ছিলেন অসাধারণ প্রজ্ঞাবান এক নেতা। জনতার প্রকৃত এ নেতা ছিলেন ইতিহাসের মহানায়ক। স্বাধীনতার জন্য জাগ্রত জাতির ঐক্যের প্রতীক ছিলেন তিনি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপাধ্যক্ষ প্রফেসর শহিদ মো. ইব্রাহীম বলেন, বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রাম আর ত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ। জাতির পিতার জন্মবার্ষিকীতে বাংলাদেশকে শিশুদের জন্য নিরাপদ আবাসভূমিতে পরিণত করার দৃপ্ত শপথ নিতে হবে।
এসময় বঙ্গবন্ধু শীর্ষক প্রমন্ধ উপস্থাপন করেন প্রফেসর ড. মো. শাহজাহান। তিনি বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট শুধু জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করা হয় নাই, হত্যা করা হয়েছে তার স্বপ্নকেও। তাই আজকের দিনে আমাদের সবচেয়ে বড় স্লোগান হওয়া উচিত, আমরা সবাই মিলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করবো। এজন্য যুব সমাজ ও শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করতে হবে।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. এ.কে.এম. শওকত আলী খান, প্রফেসর রোখসানা মার্জিয়া, সাহিত্য সংস্কৃতি কেন্দ্র ও উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক সহযোগী অধ্যাপক মো. আমজাদ হোসেন, এম. বেলাল হোসেন, সহকারী অধ্যাপক, ড. মো. মাহমুদ আলম, প্রভাষক রাজু আহমদ প্রমূখ। অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন সহকারী অধ্যাপক নূর-ই-আলম। আলোচনা সভা শেষে ৫০ পাউন্ডের কেক কাটা হয়।
সাহিত্য সংস্কৃতি কেন্দ্র ও উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক সহযোগী অধ্যাপক মো. আমজাদ হোসেন বাংলার মুখকে জানান, দিবসটি উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের বুদ্ধিবৃত্তির বিকাশ, মানুষ ও দেশ সম্পর্কে জানার জন্য বইপড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। আমরা এই কর্মসূচিতে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। আগামীতেও আমাদের এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।
বইপড়া কর্মসূচীর অংশ হিসেবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আত্মজীবনীর ওপর শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া হয় এবং প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারী এ কর্মসূচিতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন।

LEAVE A REPLY